অবশেষে বাইডেনের করোনা সহায়তা বিল অনুমোদন

54

রিপাবলিকানদের বিরোধিতা স্বত্তেও সিনেটের পর এবার মার্কিন প্রতিনিধি পরিষদেও পাস হয়েছে করোনা সহায়তা বিল। ডেমোক্র্যাট নিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদে ২২০-২১১ ভোটে পাস হয় এক লাখ নব্বই হাজার কোটি ডলারের বিশাল এই প্যাকেজ।
বুধবার (১০ মার্চ) মার্কিন নাগরিকদের করোনাকালীন ধকল কাটিয়ে উঠতে কংগ্রেসে পাস হয় এই আর্থিক সহায়তা বিল।

বিলটি বর্তমানে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সইয়ের অপেক্ষায় রয়েছে। তার সইয়ের মধ্য দিয়ে বিলটি আইনে পরিণত হবে বলে জানিয়েছে হোয়াইট হাউস। বিলটি পাসের পর এক তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় একে ঐতিহাসিক বলে আখ্যা দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

চার দিন আগেই সিনেটে পাস হওয়া এই বিলটির ওপর এদিন ভোটাভুটিতে পক্ষে বিপক্ষে ২২০-এর বিপরীতে ২১১টি ভোট পড়ে।

বিলটিকে মার্কিন নাগরিকদের জন্য ‘ঐতিহাসিক বিজয়’ বলে আখ্যা দিয়ে বাইডেন বলেন, দুঃসময়েও দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে যারা লড়াই করে গেছেন, প্রণোদনার এ অর্থ সেসব মার্কিনদের জন্য মেরুদণ্ড হয়ে তাদের ঘুরে দাঁড়াতে সহায়তা করবে।

মার্কিন নাগরিকদের সহায়তায় এ অর্থ বিশেষ ভূমিকা রাখবে বলে আশা প্রকাশ করেন ন্যান্সি পেলোসি, চাক সুমারের মতো ডেমোক্র্যাট দলীয় নেতারা।

ন্যান্সি বলেন, এ বিলটি পাশের মধ্য দিয়ে মার্কিনদের কাছে বার্তা পৌঁছে গেছে যে সহায়তা আসছে। রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককোলেন চারবার বিলটি আটকে দেয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছেন। কিন্তু দেশের নাগরিকদের জন্য এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে বড় সুখবর এ বিলটি।

প্রেসিডেন্ট যা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা পূরণের লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। মার্কিনদের জন্য নিশ্চয়ই দিনটি আনন্দের।

তবে বিলটির ব্যাপক সমালোচনা করে রিপাবলিকান দলীয় সিনেটররা বলছেন, ইতিহাসের সবচেয়ে বাজে বিলটি পাস হতে যাচ্ছে।

ম্যাককোলেন বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে এক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বাজে আইনটি পাস হতে যাচ্ছে। এর চড়া মূল্য দিতে হবে দেশকে। করোনা সময়ে যাদের কাজ ছিল তাদের এই সহয়তা দেয়া অযৌক্তিক।

শুক্রবার নাগাদ বিলটিতে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন স্বাক্ষর করবেন – এমনটা নিশ্চিত করেছে হোয়াইট হাউস। এরফলে, যুক্তরাষ্ট্রের প্রায় সব নাগরিক ১৪শ’ ডলার করে অর্থ সহায়তার চেক পাবেন এবং বেকাররা ভাতা হিসেবে প্রতি সপ্তাহে পাবেন ৩০০ ডলার।