ইউরোয় ইতিহাস গড়লেন ইতালির গোলরক্ষক ডনারুমা

37

ইউরো কাপের এবারের আসরের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়ে ইতিহাসে নাম তুলেছেন ইতালির গোলরক্ষক জিয়ানলুইগি ডনারুমা। ১৯৯৬ সাল থেকে প্রতি আসরেই ইউরোর টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত করা হয়। পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয় গোল্ডেন বল। পরিসংখ্যান বলছে এই পুরষ্কার দেওয়ার রীতি তৈরি হওয়ার পর থেকে আগের ছয় আসরে কোনও গোলরক্ষকই গোল্ডেন বল হাতে তুলতে পারেননি। এবার সেই প্রথা ভাঙলেন ইতালির ইউরো জয়ের নায়ক ডনারুমা।

টুর্নামেন্টের জুড়ে ধারাবাহিক পারফর্ম করে টুর্নামেন্ট সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন তিনি। মেগা ফাইনালে টাইব্রেকারে ফেভারিট ইংল্যান্ডকে রুখে দিয়ে ইতালিকে ইউরোপ সেরার মুকুট এনে দেওয়ার নায়ক ডনারুমা। ফাইনাল ম্যাচ টাইব্রেকারে ফলাফল নির্ধারণ হলে সেখানে দুটি পেনাল্টি শট ঠেকিয়ে দেন ইতালির এই গোলরক্ষক।

শুধু ফাইনালেই নয়, সেমিফাইনালে আজ্জুরিদের জয়ের নায়কও ছিলেন তিনি। স্পেনের বিপক্ষে সে ম্যাচটি ১-১ গোলের সমতায় শেষ হলে ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ হয় টাইব্রেকারে। সেখানেও প্রতিপক্ষের দুটি শট ঠেকিয়ে দিয়ে দলকে জয় এনে দিয়েছিলেন তিনি। এছাড়াও গ্রুপ পর্বে তুরস্ক, সুইজারল্যান্ড এবং ওয়েলসের বিপক্ষে রেখেছিলেন জাল অক্ষত। গোটা টুর্নামেন্ট জুড়ে মাত্র চারটি গোল হজম করেছেন ডনারুমা।

তবে টুর্নামেন্ট সেরার পুরষ্কার জিতলেও আসরের সেরা গোলরক্ষক হতে পারেননি তিনি। এ ক্ষেত্রে ডনারুমা পিছিয়ে পড়েছেন ইংল্যান্ডের গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ডের কাছে। আসর জুড়ে পিকফোর্ডও ছিলেন অসাধারণ। গোটা টুর্নামেন্টে নিজেদের ৭টি ম্যাচের মধ্যে ৫টিতেই ইংলিশদের ক্লিনশিট এনে দিয়েছেন পিকফোর্ড। যেখানে ডনারুমা ক্লিনশিট ৩টি।

ফাইনালে ইতালির কাছে টাইব্রেকারে হারলেও পিকফোর্ডর পারফরম্যান্স ছিল দুর্দান্ত। এবারের ইউরোয় মাত্র ২টি গোল হজম করা এই গোলরক্ষক ফাইনালে টাইব্রেকারে রুখে দিয়েছিলেন একটি শটও। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। তারপরেও টুর্নামেন্ট সেরা গোলরক্ষকের পুরস্কার উঠেছে তার হাতেই। ইউরো ২০২০ এর গোল্ডেন গ্লাভস জিতেছেন জর্ডান পিকফোর্ড।