ইকুয়েডর কারাগারে সহিংসতায় নিহত ৬৮

37

ইকুয়েডরের অন্যতম বড় কারাগারে সংঘর্ষে অন্তত ৬৮ জন বন্দি নিহত হয়েছে। স্থানীয় সময় শনিবার সকালে এই সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে দেশটির উপকূলীয় শহর গুয়াকিলে। হেরাল্ড অনলাইন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, গুয়াকিল শহরের লিটোরাল পেনিটেনশিয়ারি কারাগারে সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে। পুলিশের কৌশলগত ইউনিট কারাগারে প্রবেশ করে বন্দুক এবং বিস্ফোরক খুঁজে পেয়েছে।

ইকুয়েডরের কারাগারগুলোতে চলতি বছর এ পর্যন্ত প্রায় ৩০০ বন্দির মৃত্যু হয়েছে। কারাগারের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে সেখানে সাম্প্রতিক মাসগুলোতে সন্ত্রাসী গ্রুপগুলোর ভেতরে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হতে দেখা গেছে।

তবে গতকালের ঘটনাটি বেশ গুরুতর। সেখানে ৬৮ জনের প্রাণ চলে গেছে। এছাড়া আহত হয়েছে আরো অনেকে। প্রায় আট ঘণ্টা ধরে সংঘর্ষ চলেছে কারাগারের অভ্যন্তরে।

সেখানকার গভর্নর পাবলো অ্যারোসেমেনা বলেছেন, বন্দিরা গণহত্যা চালানোর জন্য প্যাভিলিয়ন ২-এ প্রবেশের জন্য একটি প্রাচীর ডিনামাইট দিয়ে উড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছে। তারা তাদের প্রতিদ্বন্দ্বীদের ধোঁয়ায় ডুবিয়ে দেওয়ার জন্য গদি পুড়িয়ে দিয়েছে।

যাদের প্রিয়জন নিহত হয়েছে, তাদের প্রতি এক টুইট বার্তায় সমবেদনা জানিয়েছেন এবং “বিশৃঙ্খলা থেকে মাফিয়াদের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য” নতুন ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন সে দেশের প্রেসিডেন্ট।