এইচএসসির ফল প্রকাশে সংশোধিত আইন অনুমোদন মন্ত্রিসভায়

47

করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) মহামারির কারণে পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসি বা উচ্চ মাধ্যমিকের ফল প্রকাশে শিক্ষা বোর্ডগুলোর সংশোধিত আইন চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

এজন্য ‘মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড (সংশোধিত) অধ্যাদেশ, ১৯৬১’ এবং সংশোধিত ‘বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০১৮’ ও ‘বাংলাদেশ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড আইন, ২০২০’-এর খসড়া অনুমোদন পেয়েছে মন্ত্রিসভায়।

সোমবার (১১ জানুয়ারি) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভা এই অনুমোদন দেয়। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ও সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে মন্ত্রীরা ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠকে যোগ দেন।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

তিনি বলেন, ‘মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগ এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগ থেকে নিয়ে আসা হয়েছিল যে, অধ্যাদেশ করে আগামী বুধ, বৃহস্পতি বা শনিবারের মধ্যে (এইচএসসি) রেজাল্ট দিয়ে দেয়া যায় কি না। যে পদ্ধতিতে ওনারা চিন্তা-ভাবনা করছেন, রেজাল্ট ক্যালকুলেশন করে রেডি করে রেখেছেন, কিন্তু আগের আইনের বিধান হলো, পরীক্ষা নিয়ে রেজাল্ট দিতে হবে। কিন্তু এখন যেহেতু পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হচ্ছে না, ওনারা যে পদ্ধতিতে রেজাল্ট রেডি করে রেখেছেন, সেই পদ্ধতিতে আগামী ৭-১০ দিনের মধ্যে রেজাল্ট দিয়ে দেবেন।’

‘কিন্তু ক্যাবিনেটে আলোচনার পর দেখা গেল আর মাত্র ৭ দিন পর সংসদ বসবে। পার্লামেন্ট যেহেতু অলরেডি কল করা হয়েছে, এর আগেও পার্লামেন্ট কল করার পরেও হয়েছে, এটা যেহেতু একেবারেই কাছে। ক্যাবিনেট সিদ্ধান্ত দিয়েছে দরকার নেই, এখন যদি আমরা অর্ডিন্যান্স করি তবে আবার অর্ডিন্যান্স গিয়ে পার্লামেন্ট থেকে এসে ভেটিং করতে করতে সময় পাওয়া যাবে না। কারণ মাত্র ১০ দিন পার্লামেন্ট বসবে। অধিবেশনেই প্রথম দিনই পাস করে ফেলা হবে।’

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, ‘তাই মন্ত্রিসভা সিদ্ধান্ত দিয়েছে এটা অর্ডিন্যান্স করার দরকার নেই। এটা ভেটিং সাপেক্ষে সরাসরি অনুমোদন দেয়া হল, প্রথম দিনই এটা পুটআপ করে ২-৩ দিনের মধ্যে আইন করে যাতে ২৫, ২৬ বা ম্যাক্সিমাম ২৮ জানুয়ারির মধ্যে রেজাল্ট দিয়ে দেয়া যায়, এটাই আজকে সিদ্ধান্ত হয়েছে।’

এর আগে বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ কক্ষ থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময় শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশে সংশোধিত মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড আইন অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এখন আর অধ্যাদেশ হচ্ছে না। সংশোধিত আইনের খসড়া আগামী ১৮ জানুয়ারি সংসদের শীতকালীন অধিবেশনে উপস্থাপন ও পাশের পর এইচএসসির ফলাফল প্রকাশ করা হবে।’

তিনি আরও জানান, সংশোধিত আইন অনুযায়ী দুর্যোগকালীন পরীক্ষা নিতে সক্ষম না হলে মূল্যায়ন তথা ফলাফল দেয়ার বিধান যুক্ত করা হয়েছে। বিদ্যমান আইনে পরীক্ষা ছাড়া ফল প্রকাশের বিধান নেই।

সাধারণত প্রতি বছর ১ এপ্রিল এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়ে থাকে। কিন্তু কোভিড-১৯ মহামারির কারণে পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। এবার এইচএসসি ও সমমানের মোট পরীক্ষার্থী ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ জন।

গত ৭ অক্টোবর শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে জানান, এ বছর এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে না। জেএসসি, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার গড় ফলের ভিত্তিতে এইচএসসির ফল ঘোষণা করা হবে।