করোনায় আক্রান্ত মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট

51
MEXICO CITY, MEXICO - JANUARY 30: Andres Manuel Lopez Obrador President of Mexico speaks during the joint press conference during an Official visit of Pedro Sánchez Pérez-Castejón Prime Minister of Spain and members of his cabinet at Palacio Nacional on January 30, 2019 in Mexico City, Mexico. (Photo by Manuel Velasquez/Getty Images)

মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেস ম্যানুয়েল লোপেজ ওব্রাদর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। ৬৭ বছর বয়সী লোপেজ ওব্রাডর টুইটারে জানান, তার লক্ষণগুলো মৃদু এবং রোগ নির্ণয়ের ব্যাপারে তিনি ‘আশাবাদী’ ছিলেন। খবর বিবিসির।

মেক্সিকোতে সম্প্রতি করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার মধ্যেই প্রেসিডেন্টের আক্রান্তের খবর এলো। দেশটিতে প্রায় দেড় লাখ মানুষ করোনায় মারা গেছে।

লোপেজ ওব্রাদর বলেন, তিনি বাসা থেকে কাজ করা চালিয়ে যাবেন। এছাড়া রাশিয়ার ভ্যাকসিন পেতে তিনি প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে কথা বলবেন। রবিবার ওব্রাডর জানান, দুই দেশের শীর্ষ দুই নেতার মধ্যে সোমবার কথোপকথন হবে। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ও স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিনের সরবরাহ সম্পর্কে এই আলাপ হবে বলে জানান তিনি।

গত বছর মেক্সিকোর প্রেসিডেন্ট বলেন, তিনি রুশ ভ্যাকসিনের এক কোটি ২০ লাখ ডোজ পাওয়ার চেষ্টা করবেন। মেক্সিকোতে স্পুটনিক ভি এখনো অনুমোদন পায়নি। দেশটিতে ফাইজারের ভ্যাকসিনের পরবর্তী সরবরাহ আসতে দেরি হবে। কিন্তু কর্মকর্তারা দেশটির প্রায় ১৩ লাখ জনগণের মধ্যে ভ্যাকসিন কার্যক্রম আরও বৃদ্ধি করতে চান।

গত বছরের ২৪ ডিসেম্বর থেকে মেক্সিকোতে ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়। প্রাথমিকভাবে ফাইজার-বায়োএনটেকের ভ্যাকসিনের তিন হাজার ডোজ নিয়ে দেশটি ভ্যাকসিন কার্যক্রম শুরু করে।

স্পুটনিক ভি ইতোমধ্যে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনাসহ বেশ কয়েকটি দেশে অনুমোদন পেয়েছে। ইউরোপীয় ইউনিয়নের মধ্যে হাঙ্গেরিই প্রথম দেশ যারা এ সপ্তাহে ভ্যাকসিনটির অনুমোদনের বিষয়ে সবুজ সংকেত দিয়েছে।

জ্যেষ্ঠ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হোসে লুওস আলোমিয়া জেগারা জানান, প্রেসিডেন্ট লোপেজ ওব্রাদরের শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের একটি দল তার দেখাশোনা করছেন।

জন্স হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্যমতে, মেক্সিকোতে সাড়ে ১৭ লাখেরও বেশি মানুষ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৪৯ হাজার ৬১৪ জনের। করোনায় মৃত্যু সংখ্যার দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্র, ব্রাজিল ও ভারতের পরেই রয়েছে মেক্সিকো।