কোয়ারেন্টাইন বিতর্কে ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা ম্যাচ মাঝপথে বাতিল

36

কাতার বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে বাংলাদেশ সময় রোববার দিবাগত রাত ১টায় মুখোমুখি হয় ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা। খেলা গড়িয়েছে ৫ মিনিট। এর মধ্যেই হঠাৎ বন্ধ করে দেওয়া হলো ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার বহুল প্রতীক্ষিত ম্যাচটি। আর্জেন্টাইন কয়েকজন খেলোয়াড়ের স্বাস্থ্য ছাড়পত্র ছাড়াই মাঠে নেমে পড়া নিয়ে ঝামেলা।

অতঃপর ম্যাচের মাঝপথেই স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ। এই অবস্থায় দুই দলের খেলোয়াড়-কর্তাদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। সবশেষ বিশ্বকাপ বাছাইয়ের লাতিন অঞ্চলের ম্যাচটি স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে।

শেষ পর্যন্ত ম্যাচটি মাঝপথে বাতিল হয়ে যায়। কেন? মূলত কোয়ারেন্টাইন কাণ্ডে ম্যাচটি বাতিল হয়েছে। ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগে খেলা আর্জেন্টিনার চারজন খেলোয়াড় পুরোপুরি কোয়ারেন্টাইন না মেনে এই ম্যাচে খেলতে নেমেছিলেন। সেটা নিয়ে ভোটো দিয়েছে ব্রাজিলের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ।

এমনকি ব্রাজিলের একজন স্বাস্থ্য কর্মকর্তা আর্জেন্টিনার একজন খেলোয়াড়ের সঙ্গে এ বিষয় নিয়ে সাইডলাইনে হাতাহাতিতে জড়ান। মুহূর্তের মধ্যে সেটা ছড়িয়ে পড়ে গোটা মাঠে। কিছুক্ষণ চলে ধাক্কাধাক্কি ও বাকবিতণ্ডা। এই ঘটনায় এক পর্যায়ে মাঠ ছেড়ে উঠে যান আর্জেন্টিনার খেলোয়াড় ও কর্মকর্তারা। এরপর থেকে প্রায় ৪৫ মিনিট ধরে ম্যাচ বন্ধ থাকে।

যে চারজন খেলোয়াড়কে নিয়ে ভোটো দিয়েছে ব্রাজিল স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ তাদের ছাড়া আর্জেন্টিনা খেলতে রাজি হয়নি। এদিকে নেইমার ও তার সতীর্থরা চেষ্টা করেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের বোঝানোর। মেসির এক সময়ের বার্সা সতীর্থ দানি আলভেস জার্সি খুলে চলে যান আর্জেন্টিনার ড্রেসিং রুমে। সেখান থেকে বুঝিয়ে সঙ্গে করে নিয়ে আসেন অধিনায়ক লিওনেল মেসিকে। মেসি এসে কথা বলেন ব্রাজিলের কোচ ও খেলোয়াড়দের সঙ্গে। সেখানে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য কর্মকর্তারাও।

কিন্তু কোনো ফল হয়নি। মেসি সেখান থেকে ফিরে ড্রেসিং রুম হয়ে সতীর্থদের সঙ্গে সোজা টিম বাসে গিয়ে ওঠেন এবং চলে যান। আর ম্যাচটি অবিশ্বাস্যভাবে বাতিল হয়।

এদিকে ম্যাচ বাতিল হলেও ব্রাজিলের খেলোয়াড়রা মাঠে ছাড়েননি। তারা ম্যাচ ভেন্যু সাও পাওলোর নিও কুইমিকা স্টেডিয়ামে অনুশীলনে নেমে পড়েন।

এখন দেখার বিষয় ফিফা এই ম্যাচ নিয়ে কি সিদ্ধান্ত দেয়। তারা আর্জেন্টিনার ৩ পয়েন্ট কাটে নাকি ব্রাজিলের। অবশ্য দক্ষিণ আমেরিকার ফুটবল সংস্থা কনমেবলের নিয়ম অনুযায়ী ম্যাচ শুরু করার পর বাতিল করলে ৩ পয়েন্ট কাটা যাবে। সে অনুযায়ী স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের অদূরদর্শীতার কারণে ব্রাজিলের ৩ পয়েন্ট কাটা যেতে পারে।

উল্লেখ্য, করোনার এই সময়ে ব্রাজিলের লাল তালিকাভুক্ত দেশের তালিকায় রয়েছে ইংল্যান্ড। সেখান থেকে কেউ ব্রাজিলে আসলে বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন করতে হয়। সে দেশের প্রিমিয়ার লিগে খেলে এসেছেন আর্জেন্টিনার চার ফুটবলার এমিলিয়ানো মার্টিনেজ, ক্রিশ্চিয়ান রোমেরো, জিওভানি লো সেলসো ও এমিলিয়ানো বুয়েন্দিয়া। এর মধ্যে ব্রাজিলের বিপক্ষের ম্যাচে খেলতে নেমেছিলেন মার্টিনেজ, রোমেরো ও লো সেলসো। বদলি খেলোয়াড়ের তালিকায় ছিলেন বুয়েন্দিয়া।