ক্র্যাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা, ক্র্যাবের নিন্দা ও প্রতিবাদ

35
ক্র্যাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম লাবলু

বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম লাবলুর বিরুদ্ধে মোহাম্মদপুর থানায় একটি মিথ্যা চুরির মামলা করা হয়েছে। গত ৬ নভেম্বর শুক্রবার সকালে আদাবর থানার জনৈক আব্দুল হাই (৭৭) নামে এক বৃদ্ধ মিথ্যা অভিযোগ এনে এ মামলা দায়ের করেন। অথচ মামলার এজহারে ঘটনার যে সময় উল্লেখ করা হয়েছে, সে সময় লাবলু পেশাগত কাজে মানিকগঞ্জে অবস্থান করছিলেন। তাঁর সাথে ছিলেন ক্রাইম রিপোর্টার্স বহুমুখী সমবায় সমিতির সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের অনুসন্ধানী সাংবাদিক নেসারুল হক খোকন।

 

সংগঠননের দফতর সম্পাদক শহীদুল ইসলাম রাজী স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে জানান হয়, এ মিথ্যা মামলার ঘটনায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ক্র্যাব কার্যনির্বাহী কমিটি। পাশাপাশি মাহবুব আলম লাবলুকে কোনো ধরনের হয়রানি না করতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে ক্র্যাব। ক্র্যাব কার্যনির্বাহী কমিটি মনে করে, মোহাম্মদপুর এলাকার একটি গোষ্ঠি নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে পুলিশের সহযোগীতায় নিরিহ-নিরাপরাধ মানুষদের মামলার জালে ফেলে হয়রানি করছে। যা পুলিশের ভাবমূর্তিকে চরমভাবে প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছে।

 

জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার রাতে মোহাম্মদপুরের শীর্ষ সন্ত্রাসী ও ভূমিদস্যু মনিরুজ্জামান মনির ওরফে কালা মনিরকে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে র‌্যাব। ওই মামলায় কালা মনির চার দিনের রিমান্ডে পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন। এ অবস্থায় মনিরের সহযোগী আব্দুল হাই, ঢাকা উদ্যান সমিতির অফিসে চুরি, হামলা ও ভাংচুরের মিথ্যা অভিযোগ এনে মোহাম্মদপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার এজহারে ৯ জনকে আসামি করা হয়। এরমধ্যে ৩ নম্বরে আছেন ক্র্যাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিক মাহবুব আলম লাবলু। যা অত্যান্ত নিন্দনীয় ও অপ্রত্যাশিত।

 

উল্লেখ্য, ঢাকা উদ্যান সমিতির সভাপতি মনিরুজ্জামান ওরফে কালা মনির। তাঁর নির্দেশেই এ মামলা করা হয়েছে। অভিযোগ আছে, কালা মনিরের অপরাধ কর্মকান্ডে সায় আছে স্থানীয় পুলিশের একজন শীর্ষ কর্তকর্তার। তিনি অবৈধ টাকার প্রভাবে মনির বাহিনীকে আশ্রয় প্রশ্রয় দিচ্ছেন। ক্র্যাব সভাপতি আবুল খায়ের ও সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বিকু এক বিবৃতিতে ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বলেন, মিথ্যা মামলা দায়ের করে পেশাদার সাংবাদিককে হয়রানি স্বাধীন গণমাধ্যমের পরিপন্থী। এতে বাক স্বাধীনতা রুদ্ধ হয়।

বিবৃতিতে ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ বলেন, মাহবুব আলম লাবলু বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ এনে জনৈক ওই ব্যক্তির চুরির মামলাটি উদ্দেশ্য প্রণোদিত। ঘটনার সুষ্ঠ তদন্ত করে মামলাটি দ্রুত প্রত্যাহার ও লাবলুকে হয়রানি না করার দাবি জানিয়েছেন ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ।