গোল্ডেন বল এবং বুট মেসির হাতে, ম্যাচ সেরা ডি মারিয়া

39

আগে থেকেই জানা ছিল, চ্যাম্পিয়ন হতে পারুন আর না পারুন- ব্যক্তিগত সেরা দুটি অর্জন কিন্তু হাতে উঠতে যাচ্ছে লিওনেল মেসিরই। ফাইনালসহ মোট ৭টি ম্যাচ খেলেছেন। এর মধ্যে ৫টিতেই ম্যাচ সেরা। গোলও করেছেন সর্বোচ্চ চারটি। অ্যাসিস্ট করেছেন ৫টি। তার নিকটে থাকা লওতারো মার্টিনেজ ফাইনালে গোল পাননি।

সুতরাং, সর্বোচ্চ গোলদাতার পুরস্কার গোল্ডেন বল এবং টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার গোল্ডেন বল যে মেসিই পেতে যাচ্ছেন, তা ছিল অনুমেয়। অবশেষে সেটাই হলো। টুর্নামেন্টের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার এবং সর্বোচ্চ গোলদাতা- দুটো সেরা পুরস্কারই উঠলো মেসির হাতে।

Lionel Messi: ফুটবল রাজপুত্রের 'শাপমোচন', আর্জেন্টিনাকে কোপা জেতালেন লিওনেল মেসি!

এদিকে, বছর সাতেক আগে ব্রাজিলের মাটিতে ফিফা বিশ্বকাপের ফাইনাল খেলেছিল আর্জেন্টিনা। জার্মানির বিপক্ষে সেই ম্যাচটি ইনজুরির কারণে খেলতে পারেননি অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। ডাগআউটে বসে দেখেছেন ১১৩ মিনিটে গোল হজম করে দলের বেদনাদায়ক পরাজয়। সাত বছর পর ফের ব্রাজিলের মাটিতে কোপা আমেরিকার ফাইনাল খেলল আর্জেন্টিনা। এবার আর বাইরে থাকতে হয়নি ডি মারিয়াকে। অফফর্মে থাকা নিকোলাস গনজালেজকে বসিয়ে ফাইনালের শুরুর একাদশে ডি মারিয়াকে জায়গা দিয়েছেন আর্জেন্টিনা কোচ লিওনেল স্কালোনি।

সেই ডি মারিয়াই দলকে এনে দিলেন অধরা সাফল্য। ম্যাচের ২২ মিনিটের মাথায় রদ্রিগো ডি পলের দুর্দান্ত থ্রু বলে ব্রাজিলের অফসাইড ফাঁদ ভেঙে ঢুকে পড়েন ডি মারিয়া। বুদ্ধিদীপ্ত চিপ শটে সামনে থাকা গোলরক্ষককে পরাস্ত করে দলকে এগিয়ে দেন এ তারকা ফরোয়ার্ড।

আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের হয়ে ডি মারিয়ার এটি ২১তম, কোপা আমেরিকায় চতুর্থ এবং ব্রাজিলের বিপক্ষে প্রথম গোল। আর এই গোলের সুবাদে ফাইনাল ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কারও জিতেছেন অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়া। ফাইনাল শেষে তার হাতে তুলে দেয়া হয়েছে ম্যাচ সেরার পুরস্কার।