তানজানিয়ার প্রথম মুসলিম নারী প্রেসিডেন্ট সামিয়া হাসান

61

তানজানিয়ায় প্রেসিডেন্ট জন মাগুফুলির আকস্মিক মৃত্যুর পর দায়িত্ব নিলেন সামিয়া সুলহু হাসান। পূর্ব আফ্রিকার দেশটির প্রথম নারী প্রেসিডেন্ট তিনি। তিনি তানজানিয়ার ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন।

রাজধানী দারুস সালামে শুক্রবার শপথ গ্রহণের আগে সামিয়া বলেন, সৎ ও দায়িত্বশীল থেকে দেশের সংবিধান অক্ষুণ্ন রাখতে কাজ করে যাব আমি।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেয়ার পর জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া প্রথম ভাষণে প্রয়াত প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে ২১ দিনের শোক ঘোষণা করেন সামিয়া। ২২ থেকে ২৫ মার্চ পর্যন্ত জাতীয় ছুটিও ঘোষণা করেন তিনি।

সামিয়া বলেন, এর আগে যতবার কোনো দায়িত্ব পালনের শপথ নিয়েছি, সেসবের সাথে এবারের শপথের পার্থক্য হলো এবার দুঃখভারাক্রান্ত মনে শপথ নিয়েছি।

গত বুধবার হৃদরোগে তানজানিয়ার প্রেসিডেন্ট মাগুফুলির আকস্মিক মৃত্যু হয়েছে বলে ঘোষণা করে দেশটির সরকার। প্রায় দুই সপ্তাহ আগে ২৭ ফেব্রুয়ারি শেষবার তাকে প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছিল।

দেশটিতে গুঞ্জন উঠেছে, করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েই মৃত্যু হয়েছে তার। যদিও তা ভিত্তিহীন ও গুজব বলে উড়িয়ে দিয়েছে সরকার।

শুরু থেকেই করোনার ভয়াবহতা ও এর সংক্রমণের প্রকৃত চিত্রকে আমলে নেননি মাগুফুলি। শ্বাসকষ্ট থেকে মুক্তি পেতে দেশবাসীকে প্রার্থনা, পানির ভাপ ও ঘরোয়া চিকিৎসার শরণাপন্ন হতে বলেছিলেন তিনি। গত বছরের এপ্রিলে করোনায় শনাক্তের সংখ্যা প্রকাশ বন্ধ করে দেয় তার সরকার।

জুনে ঈশ্বরের চাওয়া অনুযায়ী দেশ করোনামুক্ত হয়েছে বলে ঘোষণা দেন মাগুফুলি। করোনা সংক্রান্ত স্বাস্থ্যবিধি মাস্ক পরা বা সংক্রমণ মোকাবিলায় লকডাউনের মতো পদক্ষেপ নিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছিলেন তিনি।

তবে ২৭ ফেব্রুয়ারির সপ্তাহ খানেক আগে তানজানিয়ার আধা-স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল জাঞ্জিবারের ভাইস প্রেসিডেন্ট করোনায় আক্রান্ত হলে ভাইরাসের সংক্রমণ বন্ধ হয়নি বলে স্বীকার করেছিলেন মাগুফুলি।

প্রথমবার ২০১৫ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয়ী হয়ে তানজানিয়ার ক্ষমতায় আসেন মাগুফুলি। এরপর গত অক্টোবরের নির্বাচনে জিতে আবারো পাঁচ বছরের জন্য প্রেসিডেন্ট হন তিনি।

তানজানিয়ার সংবিধান অনুসারে, ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্টের মৃত্যু হলে তার স্থলাভিষিক্ত হয়ে ভাইস প্রেসিডেন্ট মেয়াদ পূর্ণ করবেন।