দহন

75
এতোটাই অবুঝ আমি, তোমার চোখের নোনা হাসি
দেখতে পাইনি।
কথা বললে চুম্বন মাধুরীতে, দুচোখে দহন
বুঝতে পারেনি।
টেবিলের ওপাশে ঘাসফড়িং, লজ্জায় ঋণের কথা বলা হয়নি।
ভয়, অভয় দাওনি, ক্ষতির শঙ্কা ছিলো
বড় ক্ষতি হতে পারতো
তুমি বলেছিলে-
এ সবে কিছু আসে যায় না
তোমার চোখের পাপড়িতে ছোঁয়া লাগা‌ মানে
স্বর্গ নেমে আসা
স্পর্শ ভেবে মরে যাওয়া
সেই যে
হতোবাক করা কন্ঠস্বর
ঘোর অন্ধকারেও তা দেখা যায়
পবিত্র থেকে আরো পবিত্র হয়
নির্বাণ।
বুঝতে অসুবিধা হয় না আমার
নিকষ কালো আঁধারের মতো পরিষ্কার
সহস্র বছর ধরে দেখা
বইয়ের পাতা ধরে হাটা
আলেকজান্দ্রিয়ার কোলাহলপূর্ণ লাইব্রেরীতে লোকালয়ের বাইরে শুনশান নীরবতায়
আমি খুঁজেছি তোমাকে
ধান গাছের শীষে জমে থাকা
শিশিরে।
-কবি ও সাংবাদিক অনিল সেন
বি.দ্র. কবি’র নিজস্ব এফবি থেকে নেওয়া