দেশে ওমিক্রনে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৩০

8

বাংলাদেশে প্রথম ওমিক্রন শনাক্ত হয় গত ১০ ডিসেম্বর। এখন পর্যন্ত এই অতি সংক্রামক ধরনে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০ জনে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সাম্প্রতিক সময়ে ওমিক্রনের প্রভাবে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে।

বাংলাদেশেও কয়েকদিন ধরে সংক্রমণ বাড়তে শুরু করেছে। রোববার আরও তিনজনের মৃত্যুর খবর জানায় স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এদের মধ্যে একজন পুরুষ ও দুজন নারী। তিনজনই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এনিয়ে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৮ হাজার ১০২ জনে।

একই সময়ে নতুন রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ৪৯১ জন। এনিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৫ লাখ ৯৩ হাজার ৭০০ জনে। এর আগে শনিবার (৮ মার্চ) দেশে একজনের মৃত্যু হয়। একই সময়ে নতুন রোগী হিসেবে শনাক্ত হয় ১ হাজার ১১৬ জন।

এদিকে করোনার জিনোমের উন্মুক্ত বৈশ্বিক তথ্যভান্ডার জার্মানির গ্লোবাল ইনিশিয়েটিভ অন শেয়ারিং অল ইনফ্লুয়েঞ্জা ডেটা (জিআইএসএআইডি) থেকে বাংলাদেশে সর্বশেষ কতজন ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছে সেই তথ্য পাওয়া গেছে।

গত শুক্রবার বাংলাদেশে ওমিক্রনে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ২০। কিন্তু তিনদিনের ব্যবধানে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩০ জনে। এদের সবাই রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা।

এদিকে এখন পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১ কোটি ১৬ লাখ ৭১ হাজার ৭৯৫ জনের। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৬ দশমিক ৭৮ শতাংশ। মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬৫ শতাংশ।

দেশে এখন পর্যন্ত করোনা থেকে মোট সুস্থতার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৫০ হাজার ৯০৫ জনে। সুুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৩১ শতাংশ। ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হন। করোনায় দেশে প্রথম মৃত্যু হয় ওই বছরের ১৮ মার্চ।