দেশে করানায় মৃত্যু নামলো একজনে

44

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে (কোভিড ১৯) আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় রাজধানীসহ সারাদেশে আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। তিনি সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৭ হাজার ৮৯১ জনে। ২০২০ সালের ৫ মে’র পর মৃত্যু একজনে নামলো। এরপর থেকে আজকের আগে মৃত্যু একজনে নামেনি।

একই সময়ে আক্রান্ত রোগী হিসেবে নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন ১৫৪ জন রোগী। এ নিয়ে নমুনা পরীক্ষায় মোট শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৭০ হাজার ৮৩৫ জনে।

শনিবার (৬ নভেম্বর) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা স্বাক্ষরিত করোনা পরিস্থিতি সংক্রান্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় সরকারি-বেসরকারি ৮৩৩টি ল্যাবরেটরিতে ১৩ হাজার ১৫৫ জনের নমুনা সংগ্রহ ও ১৩ হাজার ৭২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এতে শনাক্ত হয় ১৫৪ জন। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১ দশমিক ১৮ শতাংশ।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট ১ কোটি ৪ লাখ ৫৮ হাজার ৩৬৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। বিপরীতে শনাক্ত হয় ১৫ লাখ ৭০ হাজার ৮৩৫ জন। শনাক্তের হার ১৫ দশমিক শূন্য ২ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় যিনি মারা গেছেন তিনি পুরুষ। সত্তর বছরের বেশি বয়সী ওই ব্যক্তি ঢাকা বিভাগের বাসিন্দা। এছাড়া বাকি সাত বিভাগে কেউ মারা যাননি।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ২৪ ঘণ্টায় সেরে উঠেছেন ১৫৭ জন। এ নিয়ে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর চিকিৎসা শেষে সুস্থ রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ লাখ ৩৪ হাজার ৬৩৫ জনে। সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭০ শতাংশ।

দেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয় এবং এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম রোগীর মৃত্যু হয়।