বাইডেন-গানির ফোনালাপ ফাঁস, আলোচনায় ‘চমকপ্রদ তথ্য’

36

তালেবানের হাতে পশ্চিমাসমর্থিত কাবুল সরকার পতনের দিন কয়েক আগে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে সবশেষ টেলিফোনে কথা হয় আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গানির। এসময় তারা কাবুলের নিয়ন্ত্রণ ধরে রাখতে সামরিক সহযোগিতা, নতুন রাজনৈতিক কৌশলসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করেন। টানা ১৪ মিনিটের সেই কথাবার্তায় একবারের জন্যেও মনে হয়নি, কিছু দিনের মধ্যে তাদের এতসব পরিকল্পনা ভেস্তে দিতে চলেছে তালেবান। বাইডেন-গানির সেই চমকপ্রদ ফোনালাপ ফাঁস করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

বুধবার (১ সেপ্টেম্বর) এক বিশেষ প্রতিবেদনে বার্তা সংস্থাটি জানিয়েছে, সবশেষ গত ২৩ জুলাই টেলিফোনে আলাপ হয় বাইডেন ও গানির। রয়টার্স সেই ফোনালাপের একটি প্রতিলিপি হাতে পেয়েছিল, পরে তার অডিও রেকর্ডিং শুনে এ বিষয়ে নিশ্চিত হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বার্তা সংস্থাটিকে এসব তথ্য ও উপকরণ সরবরাহ করেছে সংশ্লিষ্ট সূত্র, যার এসব তথ্য প্রকাশের অনুমতি নেই।

ফোনকলে বাইডেন আশরাফ গানিকে বলেন, তিনি আফগান প্রেসিডেন্টকে সহযোগিতা করতে রাজি আছেন, যদি তিনি (গানি) প্রকাশ্যে বোঝাতে পারেন, আফগানিস্তানের জটিল পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে তার সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা রয়েছে। বাইডেন বলেন, পরিকল্পনাটা কী জানতে পারলে আমরা আকাশপথে সহযোগিতা অব্যাহত রাখব।

বাইডেন গানিকে এ কথা বলার কিছু দিন আগেই আফগান নিরাপত্তা বাহিনীর পক্ষে দক্ষিণ এশিয়ার দেশটিতে বিমান হামলা চালিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। সেসময় তালেবান এটিকে দোহা শান্তিচুক্তির স্পষ্ট লঙ্ঘন উল্লেখ করে তীব্র প্রতিবাদ জানায়।

ফোনালাপে প্রেসিডেন্ট বাইডেন আশরাফ গানিকে তাদের সামরিক পরিকল্পনা এগিয়ে নিতে ক্ষমতাধর আফগানদের সহযোগিতা নিতে পরামর্শ দেন এবং কোনো ‘যোদ্ধা’কে এই উদ্যোগের দায়িত্ব দিতে বলেন। রয়টার্সের তথ্যমতে, বাইডেন ‘যোদ্ধা’ বলতে মূলত আফগান প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেনারেল বিসমিল্লাহ খান মোহাম্মদির দিকে ইঙ্গিত করেছিলেন।

এসময় পশ্চিমা অর্থ ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত আফগান সামরিক বাহিনীর প্রশংসাও করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তিনি গানিকে বলেন, স্পষ্টত আপনাদের সেরা সামরিক বাহিনী রয়েছে। ৭০ থেকে ৮০ হাজার (তালেবান যোদ্ধা)-র বিরুদ্ধে লড়তে আপনার সুসজ্জিত তিন লাখ সৈন্য রয়েছে, যারা দারুণ যুদ্ধ করতে সক্ষম।

অবশ্য বাইডেন আফগান প্রেসিডেন্টকে এই ভরসা দেওয়ার কয়েকদিন পরেই আফগানিস্তানে একের পর এক প্রাদেশিক রাজধানীর দখল নিতে থাকে তালেবান। তাদের বিরুদ্ধে বলার মতো কোনো প্রতিরোধই গড়তে পারেনি অথবা গড়েনি বাইডেনের উল্লেখিত সেই ‘সুসজ্জিত আফগান বাহিনী’।