ভারতে তৈরি হচ্ছে ‘বিশ্বের দীর্ঘতম’ কাচের স্কাইওয়াক

পর্যটক আকর্ষণে নজরকাড়া স্থাপত্য নির্মাণ করছে ভারত। দেশটির দাবি, তারা বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম কাচের স্কাইওয়াক তৈরি করছে। যার উপর হেঁটে দেখা যাবে নিচে থাকা প্রকৃতি।

ভারতের মহারাষ্ট্রের অমরাবতীর কাছের চিখালদারায় তৈরি হচ্ছে বিশ্বের দীর্ঘতম এই স্কাইওয়াক। জানা গেছে, স্কাইওয়াকের দীর্ঘ হবে ৪০৭ মিটার। স্কাইওয়াকের মাঝে ১০০ মিটার কাচের ডেক থাকবে। ২০২৩ সালের জুলাইয়ের মধ্যে এই স্কাইওয়াক প্রস্তুত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

চিখালদারা স্কাইওয়াক, যা বিশ্বের অনেককিছুর মধ্যেই প্রথমে থাকবে বলেই জানানো হয়েছে। ভারতে তৈরি বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম এই কাচের স্কাইওয়াক একক-কেবল দড়ি দিয়ে তৈরি হবে। স্কাইওয়াকটি তৈরি করতে খরচ হবে ৩৫ কোটি টাকা।

জানা গেছে, এই স্কাইওয়াকটি সিকিমের পর ভারতের দ্বিতীয় কাচের নির্মিত স্থাপত্য হবে। এটি সুইজারল্যান্ডের স্কাইওয়াকের চেয়েও দীর্ঘ হবে। সুইজারল্যান্ডে স্কাইওয়াকের দূরত্ব ৩৯৭ মিটার এবং চীনের স্কাইওয়াকের দূরত্ব ৩৬০ মিটার।

সিআইডিসিও’র এক্সিকিউটিভ ইঞ্জিনিয়ার দেবেন্দ্র জামনিকারের মতে, বছরের শুরুতেই চিখালদারা উপত্যকায় হারিকেন পয়েন্ট এবং গোরেঘাট পয়েন্টে প্রকল্পের স্তম্ভগুলো তৈরি করা হয়েছে। তিনি জানান, প্রকল্পের ৭০ শতাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছে এবং নির্মাণের জন্য সিআইডিসিও একটি চুক্তিও করেছে। ২০২২ সালের জানুয়ারিতে মহারাষ্ট্রের বন বিভাগ চিখলদারা স্কাইওয়াক প্রকল্পকে একটি ছাড়পত্র দেয়। স্কাইওয়াকটি এখন ভারতের পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের ছাড়পত্রের অপেক্ষায় রয়েছে।

চিখালদারা স্কাইওয়াক প্রকল্পটি মেলঘাট টাইগার রিজার্ভের বাফার জোনের ওপর দিয়ে যাবে। কাচ দিয়ে নির্মাণ হওয়ার কারণে পর্যটকরা ব্যাঘ্র সংরক্ষণ ক্ষেত্র এবং এলাকার সমৃদ্ধ উদ্ভিদ ও প্রাণীজগতের শ্বাসরুদ্ধকর দৃশ্যের সাক্ষী থাকবেন। চিখালদারা স্কাইওয়াক থেকে অবর্ণনীয় প্রাকৃতিক দৃশ্য দেখা যাবে, যেখানে ৯০০ প্রজাতির গাছপালা, ৩৫ প্রজাতির প্রাণী এবং ২৬৫ প্রজাতির পাখি রয়েছে।

চিখালদারা মহারাষ্ট্রের বনাঞ্চলের একমাত্র হিল স্টেশন এবং এটি মুম্বাই-নাগপুর এক্সপ্রেসওয়ের কাছাকাছি। চিখালদারাতে নতুন কাচের এই স্কাইওয়াক উদ্বোধন হলে ভারতের পর্যটন শিল্প অন্য মাত্রায় চলে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে।