মহাকাশে স্যাটেলাইট বহনকারী রকেট পাঠালো ইরান

25

মহাকাশে স্যাটেলাইট বহনকারী রকেট পাঠিয়েছে ইরান। এটি মূলত একটি গবেষণাধর্মী স্যাটেলাইট। পরমাণু চুক্তি ফের কার্যকর করা নিয়ে বৈশ্বিক পরাশক্তি দেশগুলোর সাথে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনায় ইরানের চলমান আলোচনার মধ্যেই তেহরান এই স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করলো।

ইরানের রাষ্ট্রীয় মিডিয়ার বরাত দিয়ে বৃহস্পতিবার (৩০ ডিসেম্বর) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা। বৃহস্পতিবার এই রকেট উৎক্ষেপণের কথা জানানো হলেও ঠিক কখন সেটি মহাকাশে গিয়েছে সেটি জানানো হয়নি।

ইরানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আহমাদ হোসেইনি জানিয়েছেন, নিজস্ব প্রযুক্তিতে তৈরি স্যাটেলাইট বহনকারী ওই রকেটের নাম সী-মোর্গ বা ‘ফোনিক্স’। এই রকেটে করে তিনটি গবেষণাধর্মী ডিভাইস মহাকাশে পাঠানো হয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছেন, মহাকাশ গবেষণার এই মিশনে প্রথমবারের মতো একসঙ্গে তিনটি ডিভাইস পাঠিয়েছে ইরান। এসব ডিভাইস মহাকাশের কক্ষপথে ৪৭০ কিলোমিটার (২৯০ মাইল) উচ্চতায় অবস্থান করবে এবং রকেটের গতি ছিল প্রতি সেকেন্ডে ৭ দশমিক ৩৫০ কিলোমিটার। অবশ্য তিনি এর বেশি আর কোনো তথ্য জানাননি।

অন্যদিকে ইরানি সংবাদমাধ্যম পার্স টুডের প্রতিবেদনে আহমাদ হোসেইনির উদ্ধৃতি দিয়ে বলা হয়েছে, রকেট উৎক্ষেপণের সময় মহাকাশ কেন্দ্রের সবকিছুই নিখুঁতভাবে কাজ করেছে এবং পরিকল্পনা মতো স্যাটেলাইট বহনকারী রকেট উৎক্ষেপণ করা হয়েছে। এর মাধ্যমে চূড়ান্তভাবে ইরানের মহাকাশ গবেষণা পরিকল্পনার লক্ষ্য অর্জিত হয়েছে।

এর আগে ২০১৭ সালে ইমাম খোমেনি মহাকাশ কেন্দ্র থেকে স্যাটেলাইটবাহী রকেট সী-মোর্গ উৎক্ষেপণ করে ইরান। সেসময় রকেটটি সফলভাবে কক্ষপথে স্যাটেলাইট স্থাপন করে।

এই ঘটনার পর যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন ট্রাম্প প্রশাসন ইরানের তীব্র সমালোচনা করে। পরে ২০১৮ সালে এককভাবে পরমাণু চুক্তি থেকে বেরিয়ে আসার পাশাপাশি ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে ওয়াশিংটন।