মাঠে দর্শক উপস্থিতিকে ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকার ‘না’

15

দক্ষিণ আফ্রিকায় ফের বেড়েছে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ। দেশটিতে এখন চলছে করোনার চতুর্থ ঢেউ। যেখানে রাজত্ব করছে ভাইরাসটির নতুন ধরন ওমিক্রন। যে কারণেই দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারতের মধ্যকার আসন্ন সিরিজের তিন টেস্ট ও তিন ওয়ানডে ম্যাচের কোনোটিতেই দর্শক মাঠে ঢুকতে পারবেন না।

ক্রিকেট দক্ষিণ আফ্রিকা (সিএসএ) এবং ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই) যৌথভাবে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে। করোনাভাইরাসের ডাবল ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণ থাকা সাপেক্ষে দক্ষিণ আফ্রিকার যেকোনো খেলার মাঠে ২ হাজার দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেওয়া আছে।

ওমিক্রনের শঙ্কায় সে পথে হাঁটেনি ভারত ও দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে দর্শকরা মাঠে প্রবেশ করতে না পারলেও ভিআইপিরা এই সিরিজ মাঠে বসে উপভোগ করতে পারবেন। সিএসএ’র সঙ্গে যেসব কর্পোরেট কোম্পানির চুক্তি রয়েছে, কোম্পানির সদস্যরা ভিআইপি বক্সে বসে খেলা দেখবেন।

এক বিবৃতিতে সিএসএ জানিয়েছে, ‘ক্রিকেট ভক্তদের কাছে অত্যন্ত দু:খ প্রকাশ করছি যে দক্ষিণ আফ্রিকা-ভারত সিরিজে কোনো টিকিট ছাড়া হচ্ছে না। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রুখতে ও খেলোয়াড়দের জৈব সুরক্ষা বলয় নিশ্চিত করতে দুই বোর্ড যৌথভাবে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

গত বছরের ৭ মার্চ পচেফস্ট্রুমে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডে ম্যাচটিতে সবশেষ নিজেদের দেশে দর্শকপূর্ণ মাঠে খেলেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। এরপর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজ, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ, পাকিস্তানের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ- সবই হয়েছে ফাঁকা মাঠে।

সর্বশেষ নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে সিরিজটিতে ২০০০ দর্শক প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ওমিক্রনের থাবায় সিরিজটি বাতিল হয়ে যায়। একমাত্র ওয়ানডেতে মাত্র ৪৭৬ জন দর্শক খেলা দেখতে আসেন। এছাড়াও ওমিক্রনের কারণে বাতিল হয়ে যায় এমজাঁসি সুপার লিগের (এমএসএল) ২০২১ মৌসুম।