মুজিববর্ষ উদযাপনে যোগ দিতে ঢাকায় মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট

57

মুজিববর্ষ উদযাপনে যোগ দিতে তিন দিনের সফরে ঢাকায় পৌঁছেছেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন স্ত্রী ফাজনা আহমেদ।

বুধবার সকাল সাড়ে ৮ টায় শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাকে বহনকারী বিমান অবতরণ করে।

সকাল ৮ টা ৪০ মিনিটে সস্ত্রীক বিমান থেকে নামেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট। এ সময় সফররত মালদ্বীপের প্রেসিডেন্টকে লালগালিচায় সংবর্ধনার পাশাপাশি তিন বাহিনীর চৌকস দলের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

এ সময় ‘ধন্য ধান্যে পুষ্পভরা আমাদেরই বসুন্ধরা, তাহার মাঝে আছে দেশ এক সকল দেশের সেরা, ও সে স্বপ্ন দিয়ে তৈরি সে দেশ স্মৃতি দিয়ে ঘেরা, এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাবে নাকো তুমি, ও সে সকল দেশের রাণী সে যে আমার জন্মভূমি, সে যে আমার জন্মভূমি, সে যে আমার জন্মভূমি।’ গানের সুর বিমানবন্দর আন্দোলিত করে।

বিমানবন্দরে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ও তার স্ত্রীকে স্বাগত জানান বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ও তার স্ত্রী রাশিদা হামিদ, আইনমন্ত্রী আনিসুল হক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন, শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমসহ সরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে ১০ দিনের আয়োজনে পাঁচ রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান বাংলাদেশে আসছেন।এরমধ্যে সর্বপ্রথম বাংলাদেশে এলেন মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ। আগামী ১৯ মার্চ শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসে, ২২ মার্চ নেপালের প্রেসিডেন্ট বিদ্যা দেবী ভাণ্ডারী, ২৪ মার্চ ভুটানের প্রধানমন্ত্রী ডা. লোটে শেরিং এবং ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও বাংলাদেশে পৌঁছার কথা রয়েছে।

এদিকে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ বিমানবন্দর ত্যাগ করে ঢাকার সাভারে অবস্থিত জাতীয় স্মৃতিসৌধে যাবেন। সেখান থেকে ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিকে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন।