মোদীকে ৬ মাস ঘিরে রাখার হুঁশিয়ারি কৃষকদের

75

জনসমুদ্রে অসহায় মোদী সরকার। প্রায় ১২ লাখ কৃষক কেন্দ্র সরকারের কৃষি আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লি ঘেরাও করেছেন।

বাম সংগঠন সারা ভারত কৃষক সভাসহ (এআইকেএস) বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্বে ৫ দিন ধরে অবরুদ্ধ রাজধানী। পরিস্থিতি ঘোরতর বুঝে কোনো শর্ত ছাড়াই আন্দোলনকারী সংগঠনগুলোর নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা করতে তৈরি হয়েছে এনডিএ সরকার।

বিজেপির নেতৃত্বে চলা এনডিএ সরকারের কৃষি আইন কৃষকদের জন্য সর্বনাশ। এমনই দাবি বিভিন্ন কৃষক সংগঠনের।

তাদের আরও অভিযোগ, বেসরকারি সংস্থার কাছে দেশের কৃষি ক্ষেত্রকে বিকিয়ে দিয়েছে সরকার। এই আইন বাতিলের দাবিতে দিল্লি ঘেরাও করেছেন লাখ লাখ কৃষক।

মূলত পশ্চিম ও উত্তর ভারতের বিরাট কৃষি এলাকা এই বিক্ষোভে সামিল। পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তর প্রদেশ থেকে ইতোমধ্যেই ১২ লাখ কৃষক মিছিল করে দিল্লি অবরোধে যাচ্ছেন। এ অবস্থায় কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।

অন্যদিকে বারাণসী থেকে প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদী বার্তা দেন, কৃষি আইনে কৃষকদের ক্ষতি হবে না। তার বার্তা উড়িয়ে দিয়েছেন বিক্ষোভকারী কৃষকরা।

এখনও দিল্লিতে সেই বিক্ষোভ ঢোকেনি। তার আগেই দিল্লির সঙ্গে হরিয়ানা, পাঞ্জাব ও উত্তর প্রদেশের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। খাদ্য সংকট শুরু হতে চলেছে রাজধানীতে। এতেই দিল্লির বাসিন্দারা উদ্বিগ্ন। দাম চড়ছে হু-হু করে। অন্যদিকে আন্দোলনকারী কৃষকদের জন্য হরিয়ানার কৃষকরা লরি লরি ফুলকপি, মুলাসহ সবজি পাঠাচ্ছেন।

বিক্ষোভকারীদের দাবি, সরকার আইন বাতিল না করলে আগামী ৬ মাস দিল্লি ঘেরাও করা হবে।