সাদমান-শান্তর দাপটে লিড বাড়াচ্ছে বাংলাদেশ

40

টেস্টে এমনিতেই তুলনামূলক দুর্বল দল জিম্বাবুয়ে। সুবিধা করতে পারছে না চলমান হারারে টেস্টেও। প্রথম ইনিংসে ১৯২ রানের লিড নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে রান পাহাড়ের দিকে ছুটছে বাংলাদেশ দল। চতুর্থ দিনের প্রথম সেশন শেষে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ৩৬১ রানের লিড নিয়েছে টাইগাররা।

কোনো উইকেট না হারিয়ে স্কোর বোর্ডে ৪৫ রান তুলে তৃতীয় দিনের খেলা শেষ করেছিল বাংলাদেশ। এতে লিড দাঁড়িয়েছিল ২৩৭ রানের। আজ (শনিবার) চতুর্থ দিনের মধ্যহ্নভোজের বিরতিতে যাওয়ার আগে আরও ১২৪ রান যোগ করেছে অধিনায়ক মুমিনুল হকের দল। এতে ১ উইকেট হারিয়ে ১৬৯ রানের সংগ্রহ বাংলাদেশের।

প্রথম সেশন শেষে টাইগারদের লিড দাঁড়িয়েছে ৩৬১ রানের। বাংলাদেশের হয়ে সাদমান ইসলাম ৭২ ও নাজমুল হোসেন শান্ত ৪৭ রানে অপরাজিত আছেন।

এর আগে কখনোই ২০০ রানের লক্ষ্যও তাড়া করে জিততে পারেনি জিম্বাবুয়ে। সবচেয়ে বেশি রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডটি ১৯৯৮ সালে। পাকিস্তানের বিপক্ষে পেশওয়ারে সেবার অ্যান্ডি ফ্লাওয়ার, অ্যালিস্টার ক্যাম্পবেল, গ্রান্ট ফ্লাওয়াররা ১৬২ রান তাড়া করে ৭ উইকেটে জিতেছিলেন।

এদিকে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের প্রথম ইনিংসে রানের খাতা খুলতে পারেননি বাংলাদেশ দলের ওপেনার সাইফ হাসান। দ্বিতীয় ইনিংসে উইকেটে থিতু হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। তবে চতুর্থ দিনের শুরুর সেশনে আক্ষেপ নিয়ে ড্রেসিংরুমে ফিরতে হয় তাকে। ৭ রানের জন্য ফিফটির দেখা পাননি। একই সুযোগ পেয়ে হাতছাড়া করেননি আরেক ওপেনার সাদমান ইসলাম। টেস্ট ক্যারিয়ারের তৃতীয় অর্ধশতক তুলে নিয়েছেন তিনি।

চতুর্থ দিনে এসে ব্যাট হাতে রাজত্ব বাংলাদেশ দলের। সাইফের উইকেটটি বাদ দিলে জিম্বাবুয়ের বোলারদের তেমন কোনও সুযোগই তৈরি করতে দেননি টাইগাররা। এতে রানের গতি বেড়েছে। রানের দেখা পেয়েছেন তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামা নাজমুল হোসেন শান্তও। অর্ধশতক হাঁকানো সাদমান অপরাজিত আছেন ৭২ রানে। ফিফটির অপেক্ষায় থাকা শান্তর সংগ্রহ ৪৭ রান। দুজনের দ্বিতীয় উইকেটের অবিচ্ছেদ্য পার্টনারশিপ থেকে এসেছে ৮১ রান।

এই সেশনে বাংলাদেশ দল সর্বসাকুল্য ব্যাটিং করেছে ৩২ ওভার। যেখানে ১ উইকেট হারিয়ে স্কোর বোর্ডে জমা করেছে ১৬৯ রান।

এর আগে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৪৬৮ রান তুলতে পারে টাইগাররা। পরে জিম্বাবুয়ে তাদের প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নামলে মেহেদী হাসান মিরাজ ও সাকিব আল হাসানের ঘূর্ণির সামনে সুবিধা করতে পারেননি। তাদের ইনিংস থামে ২৭৬ রানে।