২২ বছর পর ইউএস ওপেনে ‘দুই কিশোরী’র ফাইনাল

26

ইউএস ওপেনের ফাইনালে উঠেছেন ব্রিটেনের ১৮ বছর বয়সী ইমা রাদুকানু ও কানাডার ১৯ বছর বয়সী লেইলাহ ফার্নান্দেজ। ১৯৯৯ সালের পর এই প্রথম ইউএস ওপেনের ফাইনালে লড়তে যাচ্ছেন দুই কিশোরী। ২২ বছর আগে সেরেনা উইলিয়ামস ও মার্টিনা হিঙ্গিস কিশোরী হিসেবে উঠেছিলেন ইউএস ওপেনের ফাইনালে।

অবশ্য রাদুকানু ও লেইলাহ এবারের ইউএস ওপেনে যা করেছেন তা রূপকথার চেয়েও বেশি কিছু। এই আসরে অংশ নিয়ে ইতোমধ্যে তারা দুজন ইতিহাসের অংশ হয়ে গেছেন।

ব্রিটেনের স্বপ্নসারথী রাদুকানু র‌্যাঙ্কিংয়ে ছিলেন ১৫০তম। বাছাইপর্ব খেলে তিনি ইউএস ওপেনের মূলপর্বে এসেছিলেন। তিনিই টেনিসের উন্মুক্ত যুগের প্রথম খেলোয়াড় যিনি বাছাইপর্ব পেরিয়ে এসে ইউএস ওপেনের সেমিফাইনাল খেলেছেন। তাছাড়া এটা ছিল তার দ্বিতীয় কোনো বড় টুর্নামেন্টে অংশ নেওয়া। বিস্ময়কর ব্যাপার হচ্ছে বাছাইপর্ব থেকে শুরু করে ফাইনালে উঠা পর্যন্ত তিনি এখনো একটি সেটেও হারেননি।

২০০৪ সালে মারিয়া শারাপোভা সবচেয়ে কম বয়সী টেনিস খেলোয়াড় হিসেবে কোনো গ্র্যান্ডস্লামের ফাইনালে উঠেছিলেন। এবার তাকে পেছনে ফেলে সবচেয়ে কম বয়সী টেনিস খেলোয়াড় হিসেবে ফাইনালে উঠেছেন ব্রিটিশ এই টেনিস বিস্ময় বালিকা। তাকে নিয়ে ইতোমধ্যে ব্রিটেনে উৎসব শুরু হয়েছে। তারা অপেক্ষায় আছেন নতুন এক ইতিহাস গড়ার। ১৯৭৭ সালের পর প্রথম কোনে ব্রিটিশ নারী হিসেবে গ্র্যান্ডস্লাম জয়ের।

অন্যদিকে ফার্নান্দেজ হলেন এবারের আসরের জায়ান্ট কিলার। বড় বড় তারকাদের হারিয়ে ফাইনালে এসেছেন র‌্যাঙ্কিংয়ে ৭৩ নম্বরে থাকা কানাডিয়ান এই কিশোরী। তিনি এ যাত্রায় হারিয়েছেন সাবেক দুই ইউএস ওপেন চ্যাম্পিয়নকে। তারা হলেন র‌্যাঙ্কিংয়ের ৩ নম্বরে থাকা নাওমি ওসাকা ও ১৭ নম্বরে থাকা অ্যাঙ্গেলিক কেরবার। হারিয়েছেন ৫ নম্বরে থাকা ইলিনা ভিতোলিনাকেও।

সেমিফাইনালে তিনি র‌্যাঙ্কিংয়ের দুইয়ে থাকা বেলারুশের আরিনা সাবালেঙ্কাকে হারিয়েছেন ৭-৬ (৩), ৪-৬ ও ৬-৪ সেটে। ইউএস ওপেনের এই যাত্রাকে তিনি ম্যাজিক্যাল বলে উল্লেখ করেছেন।